NATO-Taliban war: Who is the winner of this long-term war? (ন্যাটো-তালিবান যুদ্ধঃ দীর্ঘমেয়াদী এই যুদ্ধে বিজয়ী কে?)

in potitics •  3 months ago 

images (3) (4).jpeg

Image Source

When a war starts, there are several reasons behind it. And both parties to the war have an ultimate goal. This objective is not always limited to military influence over the opponent. In any case, the winner is considered to be the one who can reach the desired goal between the two parties participating in the war. Many times the winning team is seen to accept more losses than the losing team.

কোন একটা যুদ্ধ যখন শুরু হয় তখন তার পেছনে বেশ কিছু কারণ থাকে। এবং যুদ্ধে অংশগ্রহন কারী উভয় দলেরই একটা চুড়ান্ত উদ্দেশ্য থাকে। এই উদ্দেশ্য সবসময় প্রতিপক্ষের উপর সামরিকভাবে প্রভাব বিস্তার করার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে না। যায় হোক, যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী দুটো দলের মধ্যে যে দল তার আকাঙ্খিত লক্ষে পৌছাতে পারে তাদেরকেই জয়ী হিসেবে বিবেচনা করা হয়। অনেক সময় বিজয়ী দলকে পরাজয়ী দলের চেয়ে বেশি ক্ষতি স্বীকার করতেও দেখা যায়।

Today I will talk about the final outcome of the recently concluded NATO-Taliban war. This two-decade-long war has occupied one of the most important places in the history of the world. In 2001, an airstrike struck the World Trade Center in New York, USA. The US administration has blamed Osama bin Laden's al-Qaeda for the attack. Although there is widespread confusion as to who or what was involved in the attack. If al Qaeda is truly responsible for the attack, then the capabilities of the US intelligence service could be called into question. Their security arrangements may also be questioned.

আজ আমি কথা বলবো সম্প্রতি শেষ হওয়া ন্যাটো-তালিবান যুদ্ধের চুড়ান্ত ফলাফল নিয়ে। দীর্ঘ দুই দশক ধরে চলা এই যুদ্ধ পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম স্থান দখল করে আছে। ২০০১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ওয়্যার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে বিমান হামলা হয়। এই হামলার জন্য আমেরিকা প্রশাসন ওসামা বিন লাদেনের আল কায়েদা সংগঠন কে দায়ী করে। যদিও কে বা কারা এই হামলার সাথে জড়িত ছিল, তা নিয়ে ব্যাপক ধোয়াশা আছে। যদি আল কায়েদা সত্যিকার অর্থে হামলার জন্য দায়ী হয় তবে সেসময় আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থার সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলায় যায়। তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকেও প্রশ্নবিদ্ধ কীা যেতে পারে।

Al Qaeda founder and leader Osama bin Laden was thought to have fled to Afghanistan at the time. The government of Afghanistan was then the Taliban. The Taliban have given sanctuary to al Qaeda, on the pretext that the United States and its NATO allies have entered Afghanistan with the aim of overthrowing the Taliban and eliminating al Qaeda. The Taliban were forced to relinquish power within a few days, but they continued to fight. For almost twenty years, they have been dealing with NATO forces who were equipped with the latest technology but weapons of the blind era to Taliban

ধারণা করা হয়েছিল সেসময় আল কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান, ওসামা বিন লাদেন আফগানিস্তানে পালিয়ে আছেন। আফগানিস্তানের সরকার তখন তালিবান। তালিবান আল কায়েদাকে আশ্রয় দিয়েছে, এই অযুহাতে আমেরিকা এবং তাদের নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোট আফগানিস্থানে প্রবেশ করে তালিবানকে উৎখাত ও আল কায়েদাকে নির্মূল করার উদ্দেশ্যে। অল্প কিছুদিনের মধ্যেই তালিবান ক্ষমতা ছয়ড়তে বাধ্য হলেও তারা লড়াই চালিয়ে গিয়েছিল। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি আর অস্ত্রে সজ্জিত ন্যাটো বাহিনীকে মান্ধাতার আমলের অস্ত্র নিয়েই তারা মোকাবেলা করে গিয়েছিল প্রায় বিশটি বছর।

Although the mainstream media preaches to us that ordinary Afghans are anti-Taliban, without the direct support of the general public, it should not be too costly to understand that the Taliban could not stand in front of NATO forces for so long.

যদিও প্রচলিত মিডিয়া আমাদের সামনে প্রচার করে যে সাধারণ আফগান রা তালিবানদের বিরোধী, কিন্তু সাধারণ জনগনের প্রত্যক্ষ সমর্থন ছাড়া যে, তালিবান এতদিন ন্যাটো বাহিনীর সামনে টিকতে পারতো না তা বুঝতে বেশি কস্ট হওয়ার কথা না।

The only success of NATO after two decades of war is due to the assassination of Osama bin Laden, the head of Al Qaeda. Moreover, they could not succeed in any other purpose. When NATO forces realized that they would never be able to completely overthrow the Taliban, at least on Afghan soil, they were forced to make an agreement with the Taliban and leave Afghan territory.

দীর্ঘ দুই দশক যুদ্ধ চালানোর পরে ন্যাটোর সফলতা বলতে আল কায়েদার প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করা। তাছাড়া অন্যান্য আর কোন উদ্দেশ্যই তারা সফল করতে পারেনি। যখন ন্যাটো বাহিনী বুঝতে পারল যে অন্তত ঋফগান ভূমিতে তারা কখনোই তালিবান কে পুরোপুরিভাবে উৎখাত করতে পারবেনা, তখন তারা বাধ্য হয়ে তালিবানের সাথে চুক্তি করে আফগান ভূমি ছাড়তে বাধ্য হয়েছিল।

As a result, they failed to meet most of the main reasons for NATO's arrival on Afghan soil two decades ago. Then, of course, we cannot call NATO the winner of the Afghan war. So the name of the team that won this war is Taliban? Nakin is an unresolved battle. Let's discuss in the comments section.

ফলে দেখা যায় দুই দশক আগে ন্যাটোর আফগান ভূমিতে আসার প্রধান কারণ গুলোর অধিকাংশই তারা পূরণ করতে পারেনি। তাহলে নিশ্চিৎ ভাবেই আমরা ন্যাটোকে আফগান যুদ্ধের জয়ী দল বলতে পারিনা। তাহলে কি এই যুদ্ধে জয়ী দলের নাম তালিবান? নাকি এটা এক অমিমাংসিত যুদ্ধ। চলুন আলোচনা করা যাক কমেন্ট সেকশনে।

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE BLURT!